জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন গেইম- Online Game

জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন গেইম – Online Game

বর্তমানে গেইমের কোন অভাব নেই। তবে অনলাইন গেইমগুলোকে আমাদের অবশ্যই বেছে নিতে হবে। আর এই গেইমগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানা ও মেনে চলা যাবে আশা করি।

বর্তমান বিশ্ব অনেক বেশি গেমিং প্রযুক্তি নির্ভর। আর এই প্রযুক্তির যুগে আপনি প্রযুক্তির বাইরে চলতে পারবেন না। বর্তমানে অনলাইনে যেমন গেইমের আর্বিভাব তেমনি অফ লাইনেও গেইমের অনেক বেশিই আনাগোনা। অনলাইনে গেইম খেলার ও বানানোর জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয় করছে।

তেমনি ১০টি অনলাইনের মাধ্যমে খেলা যায় এমন গেইমের কথা বলবো আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে।আমাদের দেশ তথ্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এই বিষয়ে অনেক বেশি সচেতন বর্তমান সময়ে। আজকের দিনে আমরা যদি সচেতন না হই তাহলে অনেকটাই দেরি হয়ে যাবে।

২০২২ সালের পৃথিবী অনেক বেশি অগ্রগতির এবং অনেক বেশি আপডেটের হবে। বর্তমানে আমরা যদি আগামীর জন্য প্রস্তুতি নিয়ে না রাখি তাহলে আমরা এই ক্ষেত্রটা একটা সময়ে ক্ষতির কারণ হিসেবে চিহ্নিত করবো। তাই আগামী ২০২২ সাল থেকে ২০২৫ সাল পর্যন্ত আমাদেরকে অনলাইন হোক আর অফ লাইন হোক যে কোন গেইমের বিষয়ে অনেক বেশি সচেতন হতে হবে।

>> বিশ্বের জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন গেইম

১. পাবজি অনলাইন ভিত্তিক গেইম

অনলাইনের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় গেইমের মধ্যে অন্যতম একটি গেইম হলো এটি। আসলে বর্তমান পৃথিবীর মধ্যে কিছু দেশ আছে এই গেইমটি বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করছে এবং কিছু আসে যারা এই গেইমের প্রতি অনেক বেশি আসক্ত।

পাবজি অনলাইন ভিত্তিক গেইমটি ফ্রি ফায়র গেইম এর থেকে অধিক নামি গেই। বলা হয়ে থাকে পাবজি একটি রিয়েল গেমের মতো। কারণ এর মধ্যে যা কিছু আছে সবই রিয়েল। হাটাচলা, লাফানো, ঘরের ভেতরে ঢোকা ইত্যাদি।

এছাড়াও আরেকটি মজার বিষয় হলো এই গেইমের মাধ্যমে একজন আরেক জনের সাথে কথা বলা যায় অনলাইনের মাধ্যমে। যদিও এই বিষয় টি সকল লনলাইন ভিত্তিক গেইমেই রয়েছে। তবে পাবজি লাইটে একটু ভিন্ন ভাবে।

তার কারণ হলো এখানে প্রতিপক্ষ এনিমির সাথেও আপনি চবাইলে কথা বলতে পারবেন। আর এজন্যই পাবজি লাইটকে অনেক মানুষ পছন্দ করে এবং এই গেইমটি সকলের কাছে প্রিয়। তবে এটি অনেক ভারি গেইমস হওয়ায় সকলেই গেইমটি খেলতে পারে না। নরমাল কোনো স্মার্ট ফোন অথবা পিছিতে গেইমটি খেলা যায় না।

এতো এতো সত্তের পরেও অনেক মানুষ এই গেইমটি খেলে যায়। আর এতো জনপ্রিয়তা পাওয়ার কারণে সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ ছাড়াও অনেক দেশে পাবজি ও বিভিন্ন অনলাইন ভিত্তিক গেইম ব্যান করা হয়েছে তিন মাসের জন্য।

ফ্রিফায়ার এবং পাবজির মধ্যে অনেক আলোচান সমালোচনা করা হয়। কারণ হলো এই দুটি গেইম দুজন দুজনের প্রতিপক্ষের মতো। দুটি গেইমই তাদের সার্ভরের সাথে তাল মিলিয়ে চলে। পাবজি লাইটে যা আছে সেটি ফ্রি ফায়ারেও যোগ করা হয়। পাবজি গেইমের মধ্যেই টপ আপ করা হয় এবং এই আইডি গুলো পরবর্তীতে অনেক দামে সেল করা যায়।

২. ফ্রি ফায়ার অনলাইন ভিত্তিক গেইম

ফ্রি ফায়ার বর্তমান সময়ে সারাজাগানো একটি অনলাইন ভিত্তিক গেইম। বর্তমানে টপ তিন এর মধ্যে যে গেইম রেয়েছে সেগুলোর মধ্যে ফ্রিফায়র উন্নতম একটি গেইম। গেইমটি মাত্র দুই তিন বছর হয়েছে শুরু করা হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যেই উঠে গেছে জনপ্রিতার চুড়াই।

ফ্রি ফায়ার গেইম এ শুরুর দিকে মাত্র একটি সার্ভার ছিলো। কিন্তু সময়ের ব্যবধানে সেটি আসতে আসতে অনেক গুলো সার্ভারে পরিণত করে। এই তো কিছুদিন আগে আমাদের দেশে বাংলাদেশ সার্ভারে গেইমটি আনা হয়।

তবে বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে ফ্রি ফায়ার গেইমটি বেন করা হয়েছে। যদিও বাংলাদেশ থেকে যারা ফ্রিফায়ার খেলতো তারা এখন বিভিন্ন ভিপিএন দিয়ে গেইমটি খেলে। তার একটিই কারণ, সেটি হলো সকলের পছন্দের খেলা ফ্রি ফায়ার।

এই অনলাইন ভিত্তিক গেইমটি সকলের প্রিয় হওয়া কারণ হলো এখানে প্রতি মাসে বা কিছু দিন পর পর বিভিন্ন ইভেন্ট আসে। যেগুলো মধ্যে অনেক সুন্দর সুন্দর ড্রেস, ইমট, গান  স্কিন, কার স্কিন, পেট স্কিট, বান্ডিল ইত্যাদি আসে। আর এগুলো দেখতেও অনেক কিউট লাগে। তা্ব সকলেই ডাইমন্ড খরচ করে এগুলো নেয়।

তবে এখানে একটি লক্ষণীয় বিষয় হলো বাংলাদেশ থেকে অনেক টাকা গ্যারিনা ফ্রিফায়ার হাতিয়ে নিচ্ছে। প্রতিদিন অসখ্য মানুষ টপ আপ করে ফ্রিফায়ারে। আর এই টাকা গুলো সব গ্যারিনার কাছে গিয়ে জমা হয়। তাই আমাদের চেষ্টা করতে হবে এই গেইমটি না খেলার।

তবে বাংলাদেশ থেকে ফ্রি ফায়ার ব্যান হওয়ার অনেক গুলো কারণ রয়েছে। এগুলোর মধ্যে উন্নতম কয়েকটি কারণ হলো- অধিক জনপ্রিয়তা এবং ছাত্রদের ভবিষ্যৎ নষ্ট হবে বলে। এছাড়াও ছোট থেকে বড় সকলেই এই গেমের প্রতি আসক্ত। এসব দিক বিবেচনা করে বাংলাদেশ হায়কোর্ট তিন মাস ফ্রিফায়ার গেইমটি বন্ধের নির্দেশ দেয়।

>> জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন গেইম- Online Game

৩. ফোর্টনাইট ব্যাটল রয়্যাল

ফোর্টনাইট ব্যাটল রয়্যাল গেইম অনলাইন গেইম গুলোর মধ্যে উন্নতম। পুরো পৃথিবীতেই এই গেইমটির প্রচোলন রয়েছে। গুগল প্লে স্টরে গেলেই গেইমটি পাওয়া যায় তবে এই গেইমটিকে তিনটি ভাগে ভাগ করা যায়। এগুলো হলো-

প্রথম ভাগ বা মোডটি হলো ফোর্টনাইট ব্যাটল রয়্যাল, যা একসঙ্গে দলবদ্ধ হয়ে খেলতে হয়। অপর আরেকটি হলো সেভ দ্যা ওয়াল্ড, যা শুটার সার্ভাইভাল গেইম। আরেকটি হলো ফোর্টনাইট ক্রিয়েটিভ, যা নিজের ইচ্ছা মতো মোড ও চরিত্র সাজিয়ে নিতে পারে।

এই গেইমটি বিনামূল্যে খেলার সুযোগ  রয়েছে, পিছি ও মোবাইল ফোনে এই গেইমটি খেলা যায়। নিয়মিত খেলতে চাইলে এবং বাড়তি সুবিধা পেতে হলে গেইমটি কিনেও খেলা যায়। কিন্তু আপনি যদি সেটি না করে খেলতে চান তাহলে প্লেস্টরে গেলেই গেইমটি পেয়ে যাবেন।

এই গেইমটি খেরার নিয়ম হলো ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেইমের মতো। একজন বা এক সাথে চারজন মিলে খেলা যায়। সেম যেভাবে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেইম খেলা হয়।

৪. অ্যাপেক্স লিজেন্ড

বর্তমানে নতুন গেইমদের মধ্যে সারা জাগিয়েছে অ্যাপেক্স লিজেন্ড গেইমটি। ধারণা করা হচ্ছে খুব দ্রুতই গেইমটি স্মার্টফোনে চলে আসবে। ফ্রি ফায়ংর ও ব্যাটল রয়্যাল গেইমদের মধ্যে সারা জাগানো গেইম হিসেবে এটি আসতে চলেছে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যে গেইমটি উনমুক্ত হওয়ার আট ঘন্টা পর দশ লাখ ইউনিক ব্যবহার কারী এর সাথে যুক্তে হয়েছে। যদি গেইমটি মোবাইল প্লাটফর্মে চলে আসে তাহলে এর সংখ্যা আরো বাড়বে। তবে এর প্রধান নির্বাহী বলেছেন, আমরা আরো একাধিক প্লাটফর্মে যেনে চায়’।

মোবাইল প্লাটফর্মে গেইমটি আনা হলে এটি এশিয়া মহাদেশের বাজারে অনেক সাড়া ফেলবে। গেইমটিকে এখনই অন্যান্য জনপ্রিয় গেইমদের প্রতিদন্ধি বলা হচ্ছে। এটি মূলত ফাস্ট পারসন শুটার গেইম। পাবজির লাইটের মতো এটি স্কয়ার্ড নিয়ে খেলতে হয়। তবে এখানে সোলো বা ডুয়ো মোড নেই। হয়তো এর জন্যই গেইমটি অনেক জনপ্রিয় হতে চলেছে। জনপ্রিয় গেইম গুলো সবসময় সেরাদের মধ্যেই থাকে।

৫. রেইড ছায়া লিজেন্ড

এই গেইমটি আমি অনলাইনেই দেখি শূধুমাত্র। তবে নিজে কখনও এই খেলি নাই। এই গেইম খেলার জন্য আপনাকে বেশ কিছু নিয়ম আগে থেকৈই জেনে নিতে হবে।

এখানে রেসলিংকের মত না এখানে আপনি নিজেই বূঝতে পারবেন যদি সাইটে প্রবেশ করে থাকে। আসলে আমরা বিভিন্ন ধরনের গেইমগুলো তৈরি করে থাকি আমাদের পাবলিসিটি বাড়ানোর জন্য।

৬. ম্যাজিক দ্যা গ্যাডারিং এরিনা

বর্তমান গেইমের লিস্ট করার ক্ষেত্রে আমি এটিকে ৬নং এ রেখেছি। কারণ এই গেইমটি অন্যন্যা গেইম থেকে কিছুটা আলদা। আর এই গেইমের একটা ডেট লাইন ও কিছু নিয়ম আছে। এখানে অন্য গেইমের মত সিস্টেম।

২০১৭ সালের মে মাসের দিকে এটি মাসিক ভিত্তিকে সেরা গেইম নির্বাচিত হয়েছিল। তবে বর্তমানে এই গেইম খেলার সংখ্যার পরিমাণটা আগের তুলনায় অনেকটাই কম।

৭. ট্যাংকের জগত

অনলাইন জগতের মধ্যে অনেক ভালো গেমের মধ্যে অন্যতম একটি গেইম হলো এটি। এই গেইমটি মোবাইলের মাধ্যমেও খেলা যায়। ২০১০ সালের দিকে সিডির ডিক্স এর মধ্যে রেখে এই গেইম খেলাধূলা করা হতো। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপস এর কারণে এটি এখন অ্যাপস ভিত্তিক গেমে রূপান্তরিত হয়েছে।

যদিও এখনও অনেকেই আছে যারা ডিভিডির মধ্যে রেখে এই গেইম খেলে তবে বর্তমান সময়ে বেশিভাগ এই গেইম খেলে মোবাইলের মাধ্যমে।

৮. লুডু অনলাইন সপ্টওয়্যার গেইম

গ্রাম বাংলা অনেক জনপ্রিয় একটি খেলা লুডু খেলা। গ্রামের দিনে হয়তো এখন আর সেই ঘর করে করে লুডু খেলার দৃশ্যটা দেখা যায় না। তবে এখনও মোবাইলের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপস থেকে এই গেইমটা বেশি ব্যবহার করতে দেখা যায়।

অনলাইন হওয়ার কারণে অনেকেই আছেন যারা বড় বড় জায়গায় বসে সময় কাটানোর জন্য এই গেইমটি খেলে থাকেন। আসলে আমরা তো অনেকেই আছি কাজের ফাকে একটু বিনেদন এর জন্য নানা রকমের কাজ খুজে থাকি। তেমনি একটি গেইম হলো এই লুডু খেলা।

২০০৯ সালের দিকে আমাদের বিদ্যালয়ে একটা খেলার আযোজন করা হয়েছিল। সেখানে এই খেলার জন্য বেশ বড় বড় কয়েকটি লুডুর ঘর কেনা হয়েছিল। মজার বিষয় হলো অন্য গেইমের অংশগ্রহণ করা লোকজনের সংখ্যা কম হলেও এই গেইমের ক্ষেত্রে বিপরীত ঘটনা ঘটেছিল সেই সময়ে।

দেখা যাচ্ছে অনেক বেশি মানুষ এই গেইম খেলায় অংশ গ্রহণ করেছিল। অনেকেই বলে থাকেন এই গেইমটি হলো ভাগ্য নির্ধারক গেইমের মত। আসলে অনেকেই তো এটাকে সময় কাটানোর একটি মাধ্যম হিসেবেই শুধূ খেলে থাকে। আর অনেকেই আছে বাজি ধরেও খেলে থাকেন। তবে আমরা গ্রামের দৃশ্যটা লক্ষ্য করলে দেখে থাকবো তারা এই গেইমটাকে সময় কাটানোর জন্যই বেশি ব্যবহার করে।

বৃষ্টির দিনে পরিবারের সবাই মিলে এই গেইম খেলা হয়ে থাকে সাধারণত। অনেক সময় স্কুলের গিয়েও টিফিন সময়ে এই গেইমের প্রতি নজর দিয়ে থাকে বাচ্চারা। যদিও বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপস ও বিভিন্ন ধরনের অনলাইনে ওয়েবসাইটে একাউন্ট করে গিয়ে খেলে আয় করার একটি মাধ্যম তৈরি করা হয়েছে।

আমার ধারণা আগামী ২০২৫ সালের মধ্যেই এমন কিছু ওয়েবসাইট তৈরি করা হবে যেখানে আপনি টাকা দিয়ে সাবক্রাইব করে সময় কাটাবেন। হয়তো সেদিন খুব বেশি দূরে নয় যখন আপনি নিজেও এই সকল গেইমের প্রতি আকৃষ্ট হবেন।

তখন হয়তো সবাই এই গেইমের জন্য ভালো কিছু নিয়ম বা ভালো কিছু আপডেট নিয়ে আসবে। এখানে যেমন চারজন বা তিনজন বা দুইজন খেলা যায় তেমনি। লুডুর উল্টা পাশে আরও বেশি সংখ্যাক মানুষ নিয়েও এই গেইমটা খেলা যায়।

৯. চেইজ বা দাবা অনলাইন গেইম

দাবা খেলাকে রাজাদের খেলা বলা হতো এক সময়ে। ১৯ শতকের দিকে এই খেলার অনেক বেশি জনপ্রিয়তা ছিল। বর্তমানে কাজের চাপের কারণে এই খেলার প্রচলন কম দেখা যায়। অনেক সময় সময় কাটানোর জন্য এই খেলাকে বেছে নেওয়া হয়ে থাকে।

আমরা যখন কোন খেলা খেলি তখন সেটা খেলা উদ্দেশ্য লক্ষ্য করে থাকি। তেমনি কোন কোন খেলা আছে যা আমাদের মেধাকে উন্নত করে থাকে। তেমনি একটি খেলার নাম হলো এই দাবা খেলা বা যেটাকে আমরা চেজ খেলা বলে থাকি।

অনলাইনের প্রচলন হওয়ার পর থেকেই এই গেমের প্রতি মানুষের আগের থেকে বেশি আকর্ষন কাজ করে। কারণ এখন আর এই গেইম খেলার জন্য আপনাকে আরেকজনকে খুজতে হবে না। আপনি নিজে এবং ভারচুয়্যাল কোন ব্যক্তির সাথে মানে কমপিউটারের সাথেই খেলতে পারবেন।

বর্তমান সময়ে আসলে অনেকেই অনেক গেইম খেলে থাকে তবে এই গেইমের বৈশিস্ট্য হলো আপনাকে যেমন সময় কাটানোর জন্য সহযোগীতা করবে। তেমনি আপনাকে মেধাকে ভালো করবে। আসলে অনেকেই গেইম ই আছে যেসব গেইমগুলো আমাদেরকে চিন্তা করার শক্তি বাড়াতে সহযোগীতা করে থাকে।

১০. কার্ড বা তাস অনলাইন ভিত্তিক গেইম

পৃথিবীতে অন্যতম একটি জনপ্রিয় খেলার নাম হলো তাস খেলা। আগে এটি ফিজিক্যাল খেলা থাকলেও বর্তমানে প্রযুক্তির কল্যানে এটি অনলাইন ভিত্তিক হয়ে গেছে। এখন আর চারজন একসাথে বসে এই গেইম খেলার দরকার পড়ে না। এখন এই গেইম খেলার জন্য শুধুমাত্র চারটা আইডি হলেই হয়।

এই গেইম প্রথমে পিসিতে বা অনলাইনে খেলার জন্য তাদের সাইটে গিয়ে একটা একাউন্ট করে নিতে হয়। তারপর যদি প্রিমিয়াম গেইম হয় সেক্ষেত্রে আপনাকে কিছু চার্জ দিতে হবে। আর যদি ফ্রি হয় তাহলে তো কোন চার্জ দিতে হবে না।

এভাবেই আপনি আপনার ফ্রেন্ডদেরকে ইনভাইট করে সেখানে একটা সারকেল তৈরি করে নিতে পারেন। এবং একটা সময় আপনি তাদেরকে যদি অনলাইনে দেখেন তাহলে এই গেইম খেলার জন্য নোটিফিকেশান পাঠাবেন। তখন তারা যদি মনে করে আপনার সাথে খেলবে তাহলে অবশ্যই নোটিফিকেশান দেখে যুক্ত হবে।

এভাবে আপনি আপনার সেই সাইটে Ranking টাও প্রকাশ করতে পারবেন। অনেকেই এভাবে একটা দামী আইডি তৈরি করে থাকে। অনেক সময় বাস্তবে গেইম খেললেও অনেকেই তা বুঝতে বা জানতে পারে না। কিন্তু অনলাইনের মাধ্যমে খেলার কারণে তা অনেকেই জানতে ও বুঝতে পারে।

যদিও বাইরের দেশের গেইমগুলো পেইড মানে চার্জ দিয়ে খেলতে হয়। আমাদের দেশের গেইমগুলো এখনও পেইড নয়। কারণ উন্নয়নশীল দেশের জনগন পেইড গেইম খেলার মত অবস্থানে নেই বললেই চলে। যাইহোক তবে এই গেইম অনলাইন ভিত্তিক হওয়ার কারণে অনেকটাই সুবিধা হয়েছে বলবো।

 

>> জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন গেইম- Online Game

 

উপরের সবগুলো গেইমের মধ্যে আমরা কিছু পরিচিত আবার কিছু আছে আমাদের সবারই অপরিচিত। এছাড়াও আরও অনেক গেইম আছে আমাদের দেশে সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অনলাইনে। তারমধ্যে অন্যতম গেইমগুলো হলোঃ-

Elder Scrolls Online.

Doom Eternal.

Castle Crashers.

Call of Duty: Warzone.

Valorant.

Escape from Tarkov

Warzone

Overwatch

উপরোক্ত অনলাইন গেইমগুলো আমরা মূহূত্বের মধ্যেই ডাউনলোড করে খেলতে পারি। তবে কিছু গেইম আছে পেইড যেগুলো খেলার জন্য আপনাকে অবশ্যই পেমেন্ট করতে হবে।

যেসব গেইম থেকে অনলাইনে আয়ও করা যায়। আসলে এই সব গেইমগুলো তৈরি করার পেছনে একটা উদ্যেশ্য কাজ করেছে। যার ফলেই আজকের দিনে অনেকেই আছেন যারা টাকা ব্যায় করে হলেও এই সমস্ত গেইমগুলো খেলে।

এখানে অনেক সময় দেখা যায় যে, আমাদের সন্তানরা অনেক বেশি তথ্য জানে এই সম্পর্কে। তাই আমাদের সন্তানদেরকে আপডেট রাখার চেষ্টা করতে হবে। আসলে একটু সচেতন থাকলেই আমরা গেইমের মধ্যেও শিক্ষা দিতে পারি। এক সময় ও সচেতন হতে হবে শুধুমাত্র।

>> জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন গেইম- Online Game

Most Important Tags about This Articles:

Top ten online game in the world.

How to play chess.

Top ten online games for android.

Best online games for low end PC.

How to play squid game.

Best online games for android 2021.

Top ten online games in India.

How to play free fire.

Best online games to play with friends.

chess game online with friends

Top ten online games to play with friends

Best online games for PC.

chess game online multiplayer

 

1 thought on “জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন গেইম- Online Game”

Leave a Comment