Student Life এ খেলার ধূলার ৫টি প্রয়োজনীয়তা

Student Life এ খেলার ধূলার ৫টি প্রয়োজনীয়তা নিয়েই আজকের আর্টিকেল। 

সবকিছু শেখার ও জানার সবচেয়ে উত্তম সময় হলো Student Life. এই সময়টাতে সবচেয়ে বেশি জানা ও শেখা যায়। খেলাধূলা করাও অনেক জরুরী পড়াশোনা করার পাশাপাশি।

Student Life
                      Student Life এ খেলার ধূলার ৫টি প্রয়োজনীয়তা

ছাত্র জীবনেই সবচেয়ে বেশি সময় পাওয়া যায় নিজের ক্যারিয়ার গঠনে ও নিজের চরিত্র গঠনের জন্য। আমাদের মধ্যে সবচেয়ে ভালো সময় কাটে যেই সময়ে সেটাই হলো ছাত্র-জীবন।

অতি জরুরী প্রয়োজনীয় ৫টি বিষয় আমি এখানে বলার চেস্টা করছি। নিচের বিষয়গুলো লক্ষ্য রাখলেই হবে ইনশা্আল্লাহ।

১. সময় জ্ঞান সম্পর্কে সচেতন হওয়া 

২. লক্ষ্য নির্ধারণে সুবিধা 

৩. প্রতিযোগীতা করার মানসিকতা তৈরি হওয়া 

৪. শারীরিক সুস্থতা ধরে রাখা 

৫. মানসিক ভাবে কোন কাজ বা লক্ষ্য পূরণ 

উপরের ৫টি বিষয় ছাড়াও আরও অনেক প্রয়োজনীয় দিক হয়েছে খেলাধূলার। বিশেষ করে ছাত্র জীবনে। এখানে আমি উপরের ৫টি বিষয় সম্পর্কেই সামান্য ধারণা দেওয়ার চেস্টা করবো। আশা করি বিষয়গুলো বুঝতে পারবেন।

আরো পড়ুন >> শরীর সুস্থ রাখার সহজ ৭ টি উপায়

১. সময় জ্ঞান সম্পর্কে সচেতন হওয়া

খেলাধূলার জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় ও নির্দিষ্ট প্লান দরকার পড়ে। আপনি যে কোন খেলাই খেলুন না কেন আপনাকে অবশ্যই খেলার নিয়ম মানতে হবে। আপনি ফুটবল খেলার কথাই বলুন না কেন। আপনি অনেক শক্তিশালী ব্যক্তি আপনি কিন্তু শক্তি থাকলেই এই খেলাটি খেলতে পারবেন না।

তাহলে যাদের শক্তি আছে তারা সবাই ই এই খেলাটি খেলতো। আপনাকে অবশ্যই কিছু কৌশল রপ্ত করতে হবে এবং সেই কৌশল অনুসারে অবশ্যই আপনাকে খেলাটিতে শ্রম দিতে হবে। নিয়মিত খেলাটিতে শ্রম দেওয়ার মাধ্যমে আপনি সেই খেলাটি সম্পর্কে ভালো জানতে পারবেন।

খেলার মাঠে কি ধরনের কাজ আপনি করতে পারবেন আর কি ধরনের কাজ আপনি করতে পারবেন না সেই বিষয়েও আপনাকে জ্ঞান থাকতে হবে। আবার কি ধরনের কাজ করতে পারবেন না সেই বিষয়েও আপনাকে অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে।

খেলাধূলা করার আগে নিয়ম জেনে নেওয়াটা অনেকটা ই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনি নিয়ম না জেনে কোন খেলাই ভালো মত খেলতে পারবেন না। আর এটাই হলে মিনিমাম জ্ঞান। প্রতিপক্ষ কেমন হবে সেই বিষয়ের চেয়ে আপনি খেলাটি সম্পর্কে কতটুকু জ্ঞান রাখেন কতটুকু সচেতন সেটা অনেক জরুরী বিষয়।

Student Life এ খেলার ধূলার ৫টি প্রয়োজনীয়তা

২. লক্ষ্য নির্ধারণে সুবিধা

খেলাধূলার মধ্যেও প্রতিযোগীতা আসে। আর এখানে জিততে হবে এমন মানসিকতাগুলো লক্ষ্য নির্ধারণে সহযোগীতা করে থাকে। যেমন ধরুন, আপনি ক্রিকেট খেলাবেন। আপনি যদি ব্যাট করতে থাকেন তাহলে আপনি কত রান করবেন।

কোন বলকে কিভাবে মারবেন বা কোন অভারে কত রান নিতে হবে। কম রান হলে পরের অভারে বেশি নিতে হবে এমন কিচু জিনিসগুলো আমাদেরকে মেনে চলতে হয়। আর আপনি এভাবেই জীবনের লক্ষ্যাও নির্ধারণ করে নিতে পারবেন।

বাচ্চারা ছোট বয়সেই এই শিক্ষাটা লাভ করতে পারে খেলাধূলা করার মাধ্যমে। আমরা তো এখন সেই আগের দিনের মত খেলাধূলা দেখতে পাই না। এখন তো আগের মত সেই সুবিধাগুলোও আর নেই। এখন আমরা দেখি প্রযুক্তির মাধ্যমে সময় কাটানো।

এখানে ঘরের মধ্যেই খেলার দৃশ্য যেখানে বাইরের আনান্দ দেখা যায় না। এক সময় গ্রামের মাঠের মধ্যে খেলার দৃশ্য ফুটে উঠতো যেটা সত্যিই অনেক আনান্দের ছিল। গ্রাম বাংলার মাঠে দর্শক থাকতো অনেক। আর এখন প্রতিযোগীতার ভিড়ে সেই আনান্দগুলো কেন জানি হারিয়ে গেছে।

৩. প্রতিযোগীতা করার মানসিকতা তৈরি হওয়া

প্রতিযোগীতা নিজের সাথে আর সহযোগীতা সবার সাথে। এমনটাই শেখা এবং জীবন পরিচালনা করা উচিত। বিষয়টা বোঝানোর জন্য আমি ছোট বেলার একটা উদাহারণ দিতে পারি। যেখানে আপনি বিষয়টাকে সুন্দরমত বুঝতে পারবেন।

আসলে আপনি যদি একটা পরীক্ষায় ৫০ পয়েছে ১ম স্থান লাভ করেন এবং পরের বারেও যদি ৫০ এর আশেপাশে থেকে যদি পরীক্ষা দেন তাহলে আপনি জীবনের ব্যর্থতার ঘানি টানতে হবে। এখানে আপনি একাই যে দোষী বিষয়টা এমন নয়।

আপনি যখন দেখবেন আপনি কম নাম্বার পেয়েছে এখন আপনি যদি নিজের সাথে প্র্তিযোগীতা করেন তাহলেই বুঝতে পারবেন। নাম্বারটা পাশের হলেও খারাপ ফলাফল।

Student Life এ খেলার ধূলার ৫টি প্রয়োজনীয়তা

৪. শারীরিক সুস্থতা ধরে রাখা 

সুস্থ শরীর ও সুস্থ মন ভালো থাকার জন্য অনেক বেশিই প্রয়োজন একটি প্রবাদ বা বিষয় আমরা সকলেই জানি। আর সুস্থতার জন্যই আমাদেরকে অবশ্যই নিজেদের শরীরের যত্ন নিজেদেরকেই করতে হবে। একজন সুস্থ মানুষ অনেক কিছু করতে পারে।

বলা হয়ে থাকে যে, যার পেট ভালো তার সব ভালো আর যার সব ভালো তার কাজগুলোও ভালো। অর্থ্যৎ যে, যেকোন খাবার খেয়ে যদি হজম করতে পারে তাহলেই কেবলমাত্র তার পেট ভালো থাকে। আর যার পেট ভালো থাকে তাকে সুস্থ মানুষ হিসেবে ধরা হয়ে থাকে।

যারা খেলাধূলা করে থাকে তারা অনেক দিন পর্যন্ত শারীরি সুস্থতা ধরে রাখতে সক্ষম। একটা জরিপে দেখা গিয়েছে যে, শারীরিক ভাবে সুস্থ ব্যক্তিরাই মানসিক ভাবে সুস্থ থাকে।

Student Life এ খেলার ধূলার ৫টি প্রয়োজনীয়তা

 

৫. মানসিক ভাবে কোন কাজ বা লক্ষ্য পূরণ 

একজন মানুষ লক্ষ্য পূরণ করা এবং ছোট থেকে বড় হওয়ার জন্য শারীরিক যেমন সুস্থতা দরকার তেমনি দরকার মানসিকভাবেও সুস্থতা। আমাদের শরীরের রোগগুলো তো বোঝা যায় কিন্তু মানসিক রোগগুলো তো বোঝা যায় না।

শরীরের পাশাপাশি মানসিকভাবে সুস্থতার জন্যই আমাদেরকে অবশ্যই খেলাধূলা করতে হবে। বর্তমানে যদিও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের পরিবেশটা এমন যেখানে কোন খেলার মাঠ নেই। অথচ একটি বিদ্যালয়েল অন্যতম বৈশিষ্ট হলো একটি খেলার মাঠ থাকতে হবে।

বাইরের দেশের মত আমাদের দেশেও আন্তশ্রেণি ক্রিয়া প্রতিযোগীতা হয়ে থাকে। ইন্টার স্কুল খেলার প্রতিযোগীতা এবং আন্তজেলা ক্রিয়া প্রতিযোগীতা সহ আরও বেশ কিছু ক্রিয়া টুনামেন্ট হয়ে থাকে। আমাদের বার্ষিক ক্রিয়া প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠানও হয়ে থাকে।

আসলে এসব টুনামেন্টগুলো যদি নিয়মিত এবং সুন্দরমত হয় তাহলে আমাদের ছাত্র-ছাত্রীরা ছোট বয়স থেকেই তাদের লক্ষ্য নির্ধারণ করতে এবং লক্ষ্য তৈরির জন্য কিভাবে পরিশ্রম করতে হবে সেটা বুঝতে পারবে।

 

> Student Life এ খেলার ধূলার ৫টি প্রয়োজনীয়তা

 

কিছু বিষয় থাকে যা আমরা নিজেরাই সমাধান করতেপ পারি আর কিছু বিষয় থাকে যেটা আমরা নিজেরা সমাধান করতে পারি না। আমরা আমাদেরকে যদি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারি তাহলে অন্যরা তো আরওই পারবে না।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে একজন মানুষ অনেক বেশিই ভালো করতে এবং থাকতে পারে কিছু নিয়ম মেনে চলার মাধ্যমে। আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাবো আমাদের নিজ নিজ প্রত্যয় গুণে এবং বিষয়গুলো আমাদেরকে সহযোগীতা করবে চলার পথ পাড়ি দেওয়ার জন্য।

নিচের ভিডিওটি দেখলে অনেক তথ্য শেখা ও জানা যাবে বলে আমি মনে করি।

ধন্যবাদ মূল্যবান সময় নিয়ে আর্টিকেলটি পড়ার জন্য। এখানে আজকের আর্টিকেলটি অনেকটাই গুরুত্বপূর্ণ কারণ এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনি কিছু বেস্ট কী পয়েন্ট জানতে ও বুঝতে পারবেন। আপনি এগুলো জেনে নিজের বা নিজেদের ক্ষেত্রে কাজে লাগালে সুবিধা যেমন আপনি পাবেন তেমনি পাবে আপনার পরিচিতরা।

কারণ খেলাধূলা যে কতটা প্রয়োজনীয় একটি বিষয় তা অনেকেই বুঝতে পারে তবে অনেকটাই পরে। আমাদের চলার পথে খেলাধূলার মাধ্যমেই আমরা শারীরিক ও মানসিক ভাবে সুস্থ থাকতে পারি। সুস্থতার জন্য আমরা অবশ্যই নিয়মিত খেলাধূলা করবো এবং নিয়মিত জেনে বুঝে খেলাধূলা করবো।

উপরের পয়েন্টগুলো অনেক গুরুত্বপূর্ণ আমি বাস্তব জীবন থেকেই চেষ্টা করেছি বিষয়গুলোকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার। আশা করি বিষয়গুলো সবারই বোধগম্য হবে। এরকম কোন বিষয়ে জানার বা বোঝার থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আশা করবো পরে সময় করে সেই বিষয়টা ভালো মতো বুঝিয়ে কনটেন্ট আকারে দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ।

Leave a Comment